করোনার সংকটকালে ১২ হাজার মাস্ক বিতরণ করলেন মো. ফারসাদ

করোনার সংকটকালে ১২ হাজার মাস্ক বিতরণ করলেন মো. ফারসাদ

নিউজ ডেস্ক: কখনো কখনো আমাদের মুখোমুখি হতে হয় অনেক কঠিন সময়ের। তেমনি ভাবে আমাদের দেশসহ পুরো বিশ্ব আজ কঠিন সময়ের মুখোমুখি। মরঘাতী নভেল করোনাভাইরাস লণ্ডভণ্ড করে দিয়েছে পুরো বিশ্বকে। বাংলাদেশও মুক্ত নয় করোনার থাবা থেকে। দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। এমন কঠিন সময়ে কেউ বাড়িয়ে দেয় সাহায্যের হাত আবার কেউবা খুঁজে তার আর্থিক লাভ। করোনার তাণ্ডবে যখন দেশজুড়ে দেখা দিয়েছে করুণ অবস্থা তখনই একজন স্বপ্নবাজ তরুণ এগিয়ে এসেছেন মানুষের সেবায়। বাড়িয়ে দিয়েছেন সাহায্যের হাত। করোনার সংকটময় মূহুর্তে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে বিতরণ করেছেন ১২ হাজার মাস্ক।

বলছি স্বপ্নবাজ তরুণ মো. ফারসাদের কথা। উদ্যোমী এ তরুণ সমাজসেবক স্বদেশ প্রপার্টিস’র নির্বাহী পরিচালক। গত ১২ থেকে ১৫ মার্চ পর্যন্ত তাঁর নেতৃত্বে রাজধানীর মিরপুর, মোহাম্মদপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, গণভবন সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়, শেরেবাংলা নগর, ধানমণ্ডি লেক, বনানী, রবীন্দ্র সরণি, উত্তরা, গুলশান-২, বসুন্ধরা-স্বাধীন বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ, উত্তর দক্ষিণ বিশ্ববিদ্যালয়, হারডকো ইন্টারন্যাশনাল স্কুলসহ বিভিন্ন স্থানে পথশিশু, হকার, দিনমজুর, নিম্নআয়ের মানুষের পাশাপাশি বিভিন্ন পেশাজীবী ও শিক্ষার্থীদের মাঝেও মাস্কগুলো বিতরণ করা হয়। বিনামূল্যে উন্নতমানের মাস্ক পেয়ে সবাই তা হাসিমুখে গ্রহণ করেন। এসময় তারা এই মহতি উদ্যোগকে স্বাগত জানান।

মাস্ক পেয়ে খুশি গুলশানের পথশিশু মিনারা বলেন, আমার অনেক ভালো লাগছে মাস্কটি পেয়ে।

উত্তরার ভ্যান চালক সেলিম বলেন, এই সময়ে টাকা দিয়েও মাস্ক কিনে পাওয়া যাচ্ছে না। যেগুলো পাওয়া যাচ্ছে তা স্বাস্থ্যসম্মত না। কিন্তু এ স্যারের মাস্কগুলো খুব স্বাস্থ্য সম্মত। আশা কিছু কিছুটা হলেও করোনা থেকে নিরাপদে থাকতে পারব।

ধানমণ্ডির রিকশা চালক পারভেজ মিয়া বলেন, দেশে করোনা প্রাদুভার্ব দেখা দেয়ার পর লোকজন বাসা থেকে বের হয় না। তাই প্রতিদিন ২’শ টাকা রুজি করা কষ্টকর হয়ে দাড়িয়েছে। অন্যদিকে একটি মাস্কের একশত থেকে দেড় শত টাকা। যা রুজি তা দিয়ে মাস্ক কিনলে খাব কি? এ প্রশ্ন যখন মাথায় ঘুরফাক খাচ্ছিল তখন স্যার এই মাস্কটি দিলেন। আল্লাহ, স্যার আরো দান করার তাওফিক দান করুন।

স্বদেশ প্রপার্টিস’র নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ ফারসাদ বলেন, বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পরা করোনা ভাইরাসে প্রাণ হারাচ্ছে হাজার হাজার মানুষ। করোনা বর্তমান বিশ্বে একটি আতঙ্কের নাম। তবে এমন শত্রæ নয় যে মোকাবেলা করা যাবে না। গোটা মানবজাতি যদি একত্রিত হয়ে এর বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে এবং নিয়ম কানুন মেনে চলে তাহলে অবশ্যই এ মহামারী মোকাবেলা সম্ভব।

তিনি বলেন, আমি আমার সাধ্যমতো করোনা প্রতিরোধক মাস্ক দিয়েছি, ইনশাআল্লাহ করোনা মোকাবেলার শেষ পর্যন্ত সাধ্যমতো চেষ্টা চালিয়েই যাবো। আমাদের বাংলাদেশে অনেক প্রভাবশালী বিত্তশালী ব্যক্তিত্ব আছেন তারাও যদি একটু একটু করে এই খেটে খাওয়া মানুষদের পাশে দাঁড়ান তাহলে একটু হলেও এই অসহায় মানুষগুলো উপকৃত হবেন। তাই আমি সবাইকে আহবান জানাই, যার যার অবস্থান থেকে সাধ্যমতো অসহায় মানুষ গুলো পাশে এসে দাঁড়ান।

উল্লেখ্য, স্বদেশ প্রপার্টিস এর নির্বাহী পরিচালক বিশিষ্ট সমাজ সেবক মোহাম্মদ ফারসাদ দেশের বিভিন্ন সময় দুর্যোগকালীন মুহূর্তে অসহায় গরিব মানুষের পাশে দাড়িয়েছেন। তারই ধারাবাহিকতায় করোনা ভাইরাসের প্রভাবে যখন দেশের মানুষ আতঙ্কিত মানুষের পাশে দাড়ানো।

This video should inspire the young generation to come forward and help others in this current situation .এই ভিডিওটি তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে আসতে এবং বর্তমান পরিস্থিতিতে অন্যদের সহায়তা করার জন্য অনুপ্রাণিত করবে.

Posted by Md Farsad on Friday, March 20, 2020



আরো খবর


Shares